জুন ২২, ২০২১
MIMS TV
আন্তর্জাতিক প্রিয় লেখক মু: মাহবুবুর রহমান

নিউজিল্যান্ড পুলিশ বাহিনীর ইউনিফর্মে যুক্ত হলো হিজাব

মু: মাহবুবুর রহমান, নিউজিল্যান্ড থেকে

পুলিশের ইউনিফর্মে হিজাব যুক্ত করেছে নিউজিল্যান্ড। আরও বেশি সংখ্যক মুসলিম নারীকে পুলিশ বাহিনীতে যোগদানে উৎসাহিত করতেই কর্তৃপক্ষ এ পদক্ষেপ নিয়েছে বলে জানা যায়।

নিউজিল্যান্ড পুলিশের একজন মুখপাত্র জানান, দেশের বহুজাতি গোষ্ঠীর সদস্যদের নিয়ে আরও বিস্তৃত পরিসরে সেবা নিশ্চিত করাই তাদের উদ্দেশ্য। এর ফলে আরো বেশি মুসলমান নারী, পুলিশ বাহিনীতে যোগ দিতে আগ্রহী হবে বলে তারা আশা করছেন।

নিউজিল্যান্ড পুলিশ সূত্রে জানা যায়, দেশটির মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলো পরিদর্শন করা পুলিশ সদস্যরা তাঁদের কর্তৃপক্ষের কাছে ইউনিফর্মের সঙ্গে পরার মতো হিজাব তৈরির অনুরোধ জানায়। এর পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৮ সালের শেষদিকে ইউনিফর্মে হিজাব অন্তর্ভুক্ত করার প্রক্রিয়া শুরু করে নিউজিল্যান্ড পুলিশ।

নিজের পোশাকের অংশ হিসাবে প্রথম হিজাব ব্যবহারের অনুমতি চেয়েছিলেন নিউজিল্যান্ড পুলিশ কনস্টেবল জিনা আলী। এরপর পুলিশ কর্মকর্তারা সেই আবেদন গ্রহণ করে তাকে এই পোশাক চালুর আনুষ্ঠানিকতায় আমন্ত্রণ জানায়। জিনা আলিই হবেন নিউজিল্যান্ডের প্রথম পুলিশ, যিনি আনুষ্ঠানিকভাবে তার পোশাকের সঙ্গে হিজাব পরবেন।

নিউজিল্যান্ড হেরাল্ডের তথ্য অনুযায়ী, ফিজিতে জন্ম নেয়া জিনা আলী খুব অল্প বয়সে তাঁর মা বাবার সঙ্গে নিউজিল্যান্ডে আসেন। গত বছর নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে হামলার সময় জিনা আলী একটি বেসরকারি সংস্থার গ্রাহক সেবা বিভাগে কর্মরত ছিলেন। ওই ঘটনার পর তিনি দেশের মুসলিম সম্প্রদায়ের সহায়তা করার জন্য পুলিশ বাহিনীতে যোগদানের সিদ্ধান্ত নেন।

ওয়েলিংটনের বাসিন্দা ৩০ বছর বয়সী এই নারী এখন ইতিহাসের অংশ। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘মসজিদে হামলার পর আমি উপলব্ধি করতে শুরু করলাম, মানুষকে সহায়তা করার জন্য পুলিশ বাহিনীতে আরও বেশি মুসলমান নারীদের অংশগ্রহণ করা উচিত।’ পুলিশে যোগ দিয়ে পোশাকের অংশ হিসাবে হিজাব তুলে ধরতে পারায় খুবই খুশি জিনা। তিনি বলেন, ‘ আমার অনেক ভালো লাগছে এটা ভেবে যে, নিউজিল্যান্ডের পুলিশ ইউনিফর্ম পড়ে আমি সমাজ সেবা করব এবং এর সঙ্গে আমি হিজাবও ব্যবহার করতে পারব। আমার বিশ্বাস, এটা দেখে এখন আরও বেশি মুসলমান নারী পুলিশে যোগ দিতে চাইবেন।’

এর আগে ২০০৮ সালে নিউজিল্যান্ড পুলিশ শিখ ধর্মালম্বীদের বিশেষ পাগড়ি পড়ারও অনুমতি দিয়েছিলো। উল্লেখ্য ২০০৬ সালে যুক্তরাজ্যের লন্ডনের পুলিশ সিদ্ধান্ত নিয়েছিল যে, তাদের পুলিশ সদস্যরা চাইলে ইউনিফর্মের সঙ্গে হিজাব পরতে পারবে। ২০১৬ সালে একই রকম সিদ্ধান্ত নেয় স্কটল্যান্ডের পুলিশ। ২০১৬ সালে তুরস্কের নারী পুলিশ কর্মকর্তারা হিজাব পরার অনুমতি লাভ করেন। ২০১৬ সালে কানাডা সরকার ঘোষণা করে, রয়্যাল কানাডিয়ান মাউন্টেড নারী পুলিশ অফিসাররা তাদের ইউনিফর্মের অংশ হিসেবে হিজাব পরতে পারবেন। আর ২০১৯ সালে আয়ারল্যান্ডের পুলিশ সার্ভিস মুসলিম নারী পুলিশ কর্মকর্তাদের হিজাব পরার অনুমতি দেয়।

Related posts

বাতিল হলো ট্রাম্প-বাইডেনের চূড়ান্ত নির্বাচনী বিতর্ক

admin

সাইবার ঝুঁকিতে ডায়াগনস্টিক সেবা

Irani Biswash

শ্রীলঙ্কার স্টেডিয়ামে করোনার হানা

Irani Biswash

Leave a Comment

Translate »