জুন ২২, ২০২১
MIMS TV
এই মাত্র পাওয়া কোভিড ১৯ মু: মাহবুবুর রহমান স্বাস্থ্য

ভারতে অক্সফোর্ড ভ্যাকসিন জরুরি অনুমোদনের আবেদন

মু: মাহবুবুর রহমান

ভারতে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা ভ্যাকসিনের জরুরি ব্যবহারের অনুমোদন চেয়েছে বিশ্বের বৃহত্তম ভ্যাকসিন প্রস্তুতকারক সংস্থা সিরাম ইনস্টিটিউট অফ ইন্ডিয়া। ৪ ডিসেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের ওষুধ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান ফাইজার ভারতে তাদের টিকা ব্যবহারের জরুরি অনুমোদন চাওয়ার একদিন পরে ৬ই ডিসেম্বর তাদের উৎপাদিত টিকা ব্যবহারের জরুরি অনুমোদন চাইল সিরাম ইনস্টিটিউট অফ ইন্ডিয়া।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম পিটিআই জানায়, করোনা মহামারীর ফলে উদ্ভূত অভাবনীয় পরিস্থিতি এবং বিপুল সংখ্যক মানুষের স্বার্থে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ভ্যাকসিন ক্যান্ডিডেন্ট’- কোভিশিল্ড এর অনুমোদন চাওয়া হয়েছে। যে সম্ভাব্য টিকা যৌথভাবে তৈরি করেছে অক্সফোর্ড ও অ্যাস্ট্রোজেনেকা এবং যেটির উৎপাদন করছে ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউট। ভারতের ড্রাগ কন্ট্রোলার জেনারেল বা ডিসিজিআই-এর কাছে ইতোমধ্যে সিরাম ইনস্টিটিউট অফ ইন্ডিয়া অনুমোদন চেয়েছে তাদের উৎপাদিত টিকা প্রয়োগের।

ভারতে কোনো টিকা প্রয়োগের অনুমোদন পেতে হলে তার স্থানীয় পর্যায়ে (ভারতে) ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। কিন্তু ফাইজার বা তার সহযোগী কোম্পানি ভারতে এ ধরনের ট্রায়ালের জন্য আগে কোনো আবেদন করেনি। তবে স্থানীয় পর্যায়ে ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল ছাড়াও কোনো টিকার অনুমোদন দেওয়ার ক্ষমতা ভারতের ওষুধ নিয়ন্ত্রক সংস্থা ডিসিজিআই-এর রয়েছে।

অন্যদিকে  ভারতের বিভিন্ন প্রান্তে অক্সফোর্ডের ‘ভ্যাকসিন ক্যান্ডিডেন্ট’-কোভিশিল্ড এর তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল চালাচ্ছে সিরাম ইনস্টিটিউট। আর তাতে সহায়তা করছে ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চ (আইসিএমআর)।  এছাড়া যুক্তরাজ্য এবং ব্রাজিলেও এই ভ্যাকসিনের ট্রায়াল চলছে। পুনে ভিত্তিক সিরাম ইনস্টিটিউট চারটি ক্লিনিকাল ট্রায়ালের অন্তর্বর্তীকালীন তথ্য শেয়ার করে ডিসিজিআইয়ের কাছে আবেদন করেছে। তার মধ্যে একটি ভারতে, দুটি যুক্তরাজ্যে এবং একটি ব্রাজিল ট্রায়ালের অন্তর্বর্তীকালীন তথ্য।

ট্রায়ালের অন্তর্বর্তীকালীন তথ্য অনুযায়ী সেরাম ইনস্টিটিউট তাদের আবেদনে জানিয়েছে, তাদের তৈরি অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন – কোভিশিল্ড করোনা প্রতিরোধে দারুণভাবে কার্যকর। তারা আরো জানায় এই টিকা নিরাপদ ও খুবই সহনীয়। এর আগে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা জানিয়েছিল তাদের উদ্ভাবিত ভ্যাকসিন মানব শরীরে ৯০ শতাংশ কার্যকরী।

গত ২রা ডিসেম্বর বিশ্বে প্রথম দেশ হিসেবে যুক্তরাজ্য ফাইজার-বায়োএনটেকের করোনার টিকা ব্যবহারের অনুমোদন দেয় । ৮ ই ডিসেম্বর থেকে দেশটিতে এ টিকা দেয়ার কার্যক্রম শুরু হবে বলে জানা গেছে। আর বিশ্বের দ্বিতীয় দেশ হিসেবে ৪ ঠা ডিসেম্বর ফাইজারের টিকা ব্যবহারের অনুমতি দেয় বাহরাইন।

এদিকে ৫ ই ডিসেম্বর বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে রাশিয়া তাদের উদ্ভাবিত স্পুটনিক ভি টিকা দেয়ার মাধ্যমে করোনার টিকাদান কর্মসূচি শুরু করে। এরপর ৮ই ডিসেম্বর থেকে ফাইজারের উদ্ভাবিত করোনার টিকা দেয়া শুরু হচ্ছে যুক্তরাজ্যে। ১০ই ডিসেম্বর থেকে যুক্তরাষ্ট্রেও ফাইজারের উদ্ভাবিত টিকা দেয়া শুরু হবার কথা। আর এখন যদি ভারত জরুরি ব্যবহারের অনুমোদন দেয় তাহলে হয়তো ভারতেও শুরু হয়ে যাবে করোনা ভ্যাকসিনেশন কার্যক্রম।

Related posts

মেডিকেল ভর্তির ত্রুটিযুক্ত ফল প্রকাশের জন্য আইনি নোটিশ

Irani Biswash

সস্ত্রীক করোনায় আক্রান্ত মুমিনুল হক

শাহাদাৎ আশরাফ

করোনা আপডেট, মৃত্যু ৮৩ জন

Irani Biswash

Leave a Comment

Translate »