জুন ১৯, ২০২১
MIMS TV
অভিমত এই মাত্র পাওয়া জীবনধারা প্রিয় লেখক ব্রেকিং নিউজ মুনীরউদ্দিন আহমদ স্বাস্থ্য

সুস্থতার জন্য লাইফস্টাইল পরিবর্তন করুন

ড. মুনীরউদ্দিন আহমদ
লাইফস্টাইল পরিবর্তনের মাধ্যমে সুস্থ ও সুন্দর জীবনের অধিকারী হওয়া অনেক সহজ। আমরা অভ্যাসের দাস বলে অতি সহজে লাইফস্টাইল পরিবর্তন করতে পারি না।
প্রথমে খাবারের কথা বলি। সুষম খাবার খাবেন। সুষম খাবার খেলে কোনো কিছু অতিরিক্ত খেতে হবে না। বাংলাদেশের বেশিরভাগ মানুষ মাত্রাতিরিক্ত পরিমাণে ভাত বা রুটি খায়। এই মাত্রাতিরিক্ত ভাত খাওয়া বহু রোগের কারণ, তা আমরা বুঝি না। এক কাপ ভাত শরীরের জন্য যথেষ্ট, পাতলা রুটি দুই পিসের বেশি নয়। কার্বোহাইড্রেট যত কম ততো ভালো। চিনি ও মিষ্টিজাতীয় খাবার পরিহার করুন। নির্দিষ্ট সময়ে খাবার খাবেন। খাবার হতে হবে কম ক্যালরিযুক্ত এবং বেশি পুষ্টিসমৃদ্ধ। পর্যাপ্ত শাকসবজি ও ফুলমূল, ভুসিসমৃদ্ধ শস্য- লাল চাল ও লাল আটা, বাদাম, বিভিন্ন ধরনের বিচি খাবেন। সাদা চাল, সাদা আটা বা ময়দা পরিহার করুন। সাদা চাল, আটা, ময়দা, চালের গুড়ি অতি দ্রুত সুগার লেভেল বাড়িয়ে দেয়। লাল চাল ও আটায় প্রচুর ভিটামিন, খনিজ ও আঁশ রয়েছে যা শরীরের জন্য একান্ত জরুরি।
আজকাল অনেকেই কিটো ডায়েট প্র্যাকটিস করছেন। কিন্তু সাবধান! কিটো ডায়েট ফলো করতে গিয়ে কার্বোহাইড্রেট খাওয়া একদম বন্ধ করে দেবেন না। শরীরের জন্য কিছু কার্বোহাইড্রেটেরও দরকার আছে। কিটো ডায়েটের কড়াকড়ি অনুসরণ করতে গিয়ে পৃথিবীতে বহু মানুষ স্বাস্থ্য হারিয়েছেন এবং মৃত্যুমুখে পতিত হয়েছেন। কোনো কিছু নিয়ে বাড়াবাড়ি ভালো নয়।
তিসির তেল, অলিভ অয়েল স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত ভালো, যদিও দাম বেশি। সামর্থ্য থাকলে এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েল কিনুন। বাজারে প্রচলিত তেল একদম কম খাবেন। কারণ এসব তেলে ওমেগা-৬ ফ্যাটি অ্যাসিড রয়েছে যা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। সুস্বাস্থ্যের জন্য ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিডসমৃদ্ধ খাবার খাবেন। স্যামন, সার্দিন, টুনা, হেরিং মাছে প্রচুর ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড রয়েছে। স্যামন সহজলভ্য নয়, দামও অসম্ভব বেশি। তবে সার্দিন মাছ সস্তা। এক কিলোর দাম মাত্র ২১০ থেকে ২২০ টাকা। টুনা বেশি খাবেন না। টুনায় মার্কারির পরিমাণ বেশি। এসব মাছ টিনজাত অবস্থায় বড় বড় ডিপার্টমেন্টাল স্টোরে পাওয়া যায়। এছাড়া প্রায় সব ছোট মাছে(চাষের মাছ খাবেন না) ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড রয়েছে।
রান্না ছাড়াও ফ্রেশ শাকসবজির সালাদ খাবেন নিয়মিত। গরুর ও খাসির গোশত খেতে ভীষণ মজা হলেও বয়স বাড়ার সাথে সাথে তা পরিহার করা শ্রেয়। নতুবা একদম কম। ট্রান্সফ্যাট বা পোড়া তেল, ফ্রি রেডিক্যাল ও চিনি হৃদরোগ ও স্ট্রোকের কারণ। কাঁচা লবণ খাওয়া ছেড়ে দিন। প্রতিদিন কুসুমসহ অন্তত একটি করে ডিম খাবেন। নিষেধ না থাকলে পরিমিত দুধ, বাটার, পনির ও দই খাবেন। ভিটামিন-সি, বিটা ক্যারোটিন বা ভিটামিন এ, ভিটামিন ই, সেলেনিয়াম ও পলিফেনোল শরীরের জন্য বিশেষ উপকারী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। সব অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, আঁশ ও খনিজের উৎকৃষ্ট উৎস তাজা ফলমূল, শাকসবজি ও সবুজ চা। প্রতিদিন অন্তত দুপেয়ালা গ্রিন টি খাবেন। প্রতিদিন খেজুর, পানিতে মিশিয়ে একটি গোটা লেবুর রস, এক চায়ের চামচ কালিজিরা, এক চামচ মধু খাবেন। ডায়াবেটিস থাকলে খেজুর ও মধু খুব কম খেতে হবে অথবা বাদ দিতে হবে।
সামর্থ্য থাকলে অ্যাভোকাডো খেতে পারেন। অ্যাভোকাডো একটি শ্রেষ্ঠ ফল। এক কিলোর দাম এক হাজার টাকার কাছাকাছি। অ্যাভোকাডোতে রয়েছে- ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড, বিটা কেরোটিন, ভিটামিন সি, ই, কে, রাইবোফ্ল্যাভিন, ফোলিক অ্যাসিড, প্যান্টোথেনিক অ্যাসিড, লিউটিন, পটাসিয়াম, ম্যাগনেসিয়ামসহ আরও অনেক কিছু।
উচ্চ রক্তচাপ, হৃদরোগ, স্ট্রোক, ডায়াবেটিস, স্থূলতা ও ক্যান্সারজাতীয় প্রাণঘাতী রোগ থেকে বাঁচতে হলে বিয়েশাদি এবং অন্যান্য সামাজিক ও পারিবারিক অনুষ্ঠানে ঘি, ডালডা, চর্বি বা প্রচুর তেলসমৃদ্ধ পোলাও, রোস্ট, বিরিয়ানি, খাসি ও গরুর গোশত খাওয়া বন্ধ করতে হবে। রাস্তার খাবার বর্জন করুন। ফুচকা ঝালমুড়ি আচারজাতীয় খাবার দেখলে জিহবায় পানি আসে। কিন্তু এসব খাবার অস্বাস্থ্যকর। সুস্থ থাকতে চাইলে জিহ্বা সংযত করা অত্যাবশ্যক।
জাংকফুড আপনার অজান্তেই স্বাস্থ্যের বড় সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়াবে। এসব খাবারে পুষ্টি কম, চর্বি বেশি। ম্যাকডোনাল্ড, বার্গার কিং, কেন্টাকি ফ্রায়েড চিকেন, পিৎসা, হ্যামবার্গার, ফ্রেঞ্চ ফ্রাই, এনার্জি ড্রিংক, পেপসি, কোকাকোলাতে রয়েছে প্রচুর লবণ, চিনি, মনোসোডিয়াম গ্লুটামেট ও টাট্রাজিনজাতীয় বিতর্কিত খাদ্যোপকরণ। কোমল পানীয় ও জাংকফুডে প্রচুর চিনি ও চর্বি থাকে বলে এমন খাবার খেলে ওজন বেড়ে যাওয়াসহ উচ্চ রক্তচাপ, হৃদরোগ, স্ট্রোক, ডায়াবেটিস, আর্থ্রাইটিস, ক্যান্সারের মতো বহু জটিল রোগের উৎপত্তি হয়। মাত্রাতিরিক্ত চা, কফি কিডনি ধ্বংসের কারণ হতে পারে। মদ ও মাদক হারাম করুন। ধূমপান ছাড়ুন। ব্রেইন, হার্ট ও কিডনি বাঁচাতে হলে ডায়াবেটিস ও রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখুন।
ব্যথানাশক ওষুধ পরিহার করে চলুন।
প্রতিদিন ব্যায়াম করুন। দিনে দুই মাইল বা তিন কিলোমিটার হাঁটার অভ্যাস গড়ে তুলুন। এতে সারাদিনের শারীরিক ও মানসিক ক্লান্তি, অবসাদ ও দুশ্চিন্তা দূর হবে। ব্যায়াম করলে রাতের ঘুম ভালো হবে।
প্রতিদিন দুই থেকে তিন লিটার বিশুদ্ধ পানি পান করুন। পানি আপনার শরীরের বর্জ্য পরিষ্কার ও বিভিন্ন মেটাবলিক প্রক্রিয়ায় সাহায্য করে। পর্যাপ্ত পানি পান করলে বহু রোগ থেকে বেঁচে থাকা যায়।
সূর্যালোক শরীরে ভিটামিন-ডি তৈরি করে। ভিটামিন-ডি’র ঘাটতি হলে শরীরের ক্যালসিয়াম বিশোষণে বিঘ্ন ঘটে। ক্যালসিয়াম শরীরের জন্য খুব প্রয়োজনীয় একটি উপকরণ। প্রতিদিন অন্তত ৩০ মিনিট সূর্যস্নান করা দরকার। সূর্যস্নান করতে না পারলে ডাক্তারের পরামর্শ মোতাবেক ভিটামিন ডি সাপ্লিমেন্ট নিন।
পর্যাপ্ত ঘুমের অভাবে মানবদেহে শক্তি উৎপাদন, গ্লুকোজ মেটাবলিজম কমে যায় এবং বয়োবৃদ্ধি বা এইজিং প্রক্রিয়া বেড়ে যায়। শরীরে শক্তি সংরক্ষণ, কোষপুঞ্জ তৈরি ও মেরামত, শরীরের প্রতিরক্ষাব্যবস্থা পুনর্গঠন, মস্তিষ্ককে কোষের ধ্বংসাবশেষ থেকে পরিষ্কার রাখার জন্য পর্যাপ্ত ও নিরুপদ্রব ঘুমের একান্ত প্রয়োজন।
দুশ্চিন্তামুক্ত জীবনযাপন করুন। হতাশা, দুশ্চিন্তা, মানসিক অশান্তি আপনাকে মারাত্মক অসুস্থ করে তুলবে। সদা হাসিখুশি থাকুন, ভালো কাজে আত্মনিয়োগ করুন। তাহলে আপনি অনেক ভালো থাকবেন।
দাম্পত্যজীবন সুখকর করুন। দাম্পত্য জীবনে যারা সুখী নয়, তারা সুস্থও নয়। পরিবারের সবার সাথে মিলেমিশে থাকুন। এতে সুখ আছে, শান্তি আছে, নিরাপত্তাও আছে। দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্যি, বাংলাদেশে পারিবারিক বন্ধন ও বোঝাপড়া দিন দিন ভাঙনের দিকে চলেছে।
আল্লাহর ওপর বিশ্বাস রাখুন। কাম, ক্রোধ, লোভ-লালসা, মোহ, ঈর্ষা ও প্রতিহিংসা আমাদের দুঃখ, কষ্ট, অশান্তি, অসুস্থতা ও ধ্বংসের মূল কারণ। সততা, সৎকর্ম ও অকুণ্ঠ অটল সৃষ্টিকর্তাপ্রীতির মাধ্যমে উল্লিখিত বদগুণ বর্জন করে এই জীবনেই পরম স্বর্গসুখের স্বাদ লাভের জন্য মানবিক গুণাবলি অর্জন করুন। চুরি, ডাকাতি, দুর্নীতি, সুদ, ঘুষ খাওয়া ছাড়ুন। হারাম উপার্জন আপনার অসুস্থতার কারণ হয়ে দাঁড়াবে, আপনি তা বুঝতেও পারবেন না।
আল্লাহ মানুষকে নিয়মতান্ত্রিক, স্বাস্থ্যসম্মত জীবনযাপনের আদেশ দিয়েছেন। তাঁর সেই আদেশ-নিষেধ মেনে চললে জীবন অনেক সুস্থ, শান্তিময় ও নিরাপদ হবে।
# ড. মুনীরউদ্দিন আহমদ ; প্রফেসর এন্ড হেড ডিপার্টমেন্ট অব ফার্মেসী, ডেফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, ঢাকা

Related posts

বঙ্গবন্ধুর অর্থনৈতিক মডেল অনুসরণের পরামর্শ নোবেলজয়ী অমর্ত্য সেনের

admin

কভিড-১৯ আপডেট : কানাডায় আবারও আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে

শাহাদাৎ আশরাফ

বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি ও জাতীয় স্মৃতিসৌধে মালদ্বীপের প্রেসিডেন্টের শ্রদ্ধা ‍নিবেদন

admin

Leave a Comment

Translate »