জুলাই ৩১, ২০২১
MIMS TV
কোভিড ১৯

ল্যাব কন্ডিশনে ২৮ দিন বেঁচে থাকে করোনাভাইরাস

ব্যাঙ্ক নোট, মোবাইল ফোনের স্ক্রিন, স্টেইনলেস স্টিলের মতো বিভিন্ন পৃষ্ঠতলে ২৮ দিন পর্যন্ত সক্রিয় থাকতে পারে কোভিড-১৯। নতুন এক গবেষণার ভিত্তিতে সোমবার এ তথ্য জানিয়েছে অস্ট্রেলিয়ার বিজ্ঞানীরা। গবেষণা ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে ভাইরোলজি সাময়িকীতে।

অস্ট্রেলিয়ার ন্যাশনাল সায়েন্স এজেন্সির গবেষকরা জানান, ল্যাবরেটরির অন্ধকারাচ্ছন্ন ইউভি লাইটের নীচে পরীক্ষাটি করা হয়। এতে দেখা যায়, বাস্তব জীবনে আরও ঝুঁকিপূর্ণ নিত্য-ব্যবহার্য পণ্যের গায়ে লেগে থাকে ভাইরাসটি। শুধু হাঁচি-কাশি বা অসুস্থ ব্যক্তির কথার মাধ্যমে নয় বরং বাতাসে ভাসমান কণা থেকেও সংক্রমিত হতে পারে অন্যরা। যা ভাবা হয়েছিল তার চেয়ে অনেক বেশি দিন বেঁচে থাকতে পারে সার্স-কোভ-২।

গবেষণা ফলাফলে আরও বলা হয়, সার্স-কোভ-২ শীতল তাপমাত্রা থেকে উষ্ণ তাপমাত্রায় কম সময় বেঁচে থাকতে পারে। ৪০ ডিগ্রী সেলসিয়াস তাপমাত্রায় কিছু পৃষ্ঠতলে এর সংক্রমণ ক্ষমতা ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বন্ধ হয়ে যায়। এটি কাপড়ের মতো বহুরন্ধ্র উপকরণের তুলনায় মসৃণ, রন্ধ্রবিহীন পৃষ্ঠতলে বেশি সময় বেঁচে থাকে। গেল ১৪ দিনে কাপড়ের মাধ্যমে কোনো ভাইরাস সংক্রমণ ছড়ায়নি বলে দেখা গেছে। পোশাক নিয়মিত ধোয়ার কারণে সবচেয়ে কমসময় ভাইরাস জীবিত থাকে কাপড়ে।

এর আগের গবেষণায় বলা হয়েছিলো, ব্যাংক নোট ও কাঁচে তিনদিন এবং প্লাস্টিক ও স্টেইনলেস স্টিলে এক সপ্তাহের মতো সক্রিয় থাকতে পারে কোভিড-১৯।

কিন্তু অস্ট্রেলিয়ার সংস্থা সিএসআইআরও এর গবেষণায় ভাইরাসটিকে খুবই শক্তিশালী হিসেবে পাওয়া গেছে। নতুন গবেষণায় দেখা যায়, করোনার আয়ু আরো অনেক বেশি। অন্ধকারে ২০ সেলসিয়াস তাপমাত্রায় মোবাইল ফোনের স্ক্রিনে ব্যবহার করা গ্লাস এবং প্লাস্টিক ও কাগজের ব্যাঙ্ক নোটের মতো মসৃণ পৃষ্ঠতলে ২৮ দিন পর্যন্ত বেঁচে থাকতে পারে। বাড়ির ভেতরে স্বাভাবিক তাপমাত্রায় প্রায় এক মাসও সক্রিয় থাকে। তবে সূর্যের অতি বেগুনি রশ্মি করোনা ধ্বংস করে।

তবে এই গবেষণা ফলাফলের সমালোচনা করেছেন কার্ডিফ বিশ্ববিদ্যালয়ের কমন কোল্ড সেন্টারের অধ্যাপক রন একেলস। তিনি বলেছেন, ভাইরাসটি ২৮ দিন বেঁচে থাকতে পারে এই ধারণা জনসাধারণের মধ্যে অযথা আতঙ্ক ছড়াতে পারে।

Related posts

কুয়েতে ৭ মার্চ থেকে মাসজুড়ে ১২ ঘণ্টার কারফিউ

Mims tv : Powered by information

রাজধানীর সুরক্ষায় ৭ জেলায় লকডাউন

Irani Biswash

করোনায় আরও ২৩ মৃত্যু, শনাক্ত ১৩০৮!

শাহাদাৎ আশরাফ

Leave a Comment

Translate »